ব্রাজিলে সব কারখানা বন্ধ করছে ফোর্ড

Bonikbarta

গত কয়েক বছরে কয়েকটি কারখানা বন্ধের পর এবার শেষ তিনটি কারখানাও বন্ধের পথে এগোচ্ছে ফোর্ড। এতে ব্রাজিল থেকে নিজেদের উৎপাদন কার্যক্রম একেবারে গুটিয়ে নিচ্ছে মার্কিন গাড়ি নির্মাতা জায়ান্টটি। খবর বিবিসি দ্য গার্ডিয়ান।

এই তিনটি কারখানা বন্ধ করার কারণ হিসেবে মহামারীর কথা বলা হচ্ছে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে। তারা বলছে, গত বছর বিক্রি হ্রাস পাওয়া এবং অঞ্চলটিতে উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ক্ষতির কারণে সিদ্ধান্তের পথে হাঁটতে হয়েছে তাদের। এখন ফোর্ড নিজেদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়ায় চাকরি হারাতে যাচ্ছেন প্রায় পাঁচ হাজার কর্মী। যাদের বেশির ভাগই ব্রাজিলিয়ান। সিদ্ধান্তটি মূলত ফোর্ডের বৈশ্বিক পুনর্গঠনের একটি অংশ, যেখানে ফোর্ড নিজেদের অর্থনৈতিক অবস্থা উন্নতি ঘটানোর চেষ্টা করছে।

ফোর্ডের দেয়া পরিসংখ্যান অনুসারে, ২০২০ সালে ব্রাজিলে নতুন গাড়ির বিক্রি কমেছে ২৬ শতাংশ। এর মধ্যে ব্যক্তিগত গাড়ি বিক্রি কমেছে ২৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ এবং বাস বিক্রি কমেছে ৩৩ শতাংশ।

ফোর্ডের প্রধান নির্বাহী জিম ফার্লে বলেন, আমরা জানি এটা খুব কঠিন সিদ্ধান্ত, কিন্তু জরুরি সিদ্ধান্তও বটে। নিজেদের ব্যবসাকে টেকসই করার লক্ষ্যে উদ্যোগটি আমাদের নিতে হয়েছে।

কভিড১৯কে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেও ফোর্ড অবশ্য তার আগে থেকেই বেশকিছু বাজারে নিজেদের ব্যবসা গুটিয়ে নেয়ার কথা ভাবছিল। যেখানে ব্রাজিল, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, রাশিয়া জার্মানিতে কার্যক্রম বন্ধ করার বিষয়টিও অন্তর্ভুক্ত ছিল।

সোমবার ফোর্ডের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা কামাকারি এবং তাওবাতের কারখানায় অবিলম্বে নিজেদের কার্যক্রম বন্ধ করার পরিকল্পনা করছে। অন্য কারখানাগুলোয় আরো কিছুদিন কার্যক্রম চলবে। সাও পাওলোর অদূরে তাওবাতে ১৯২১ সালে প্রথম কারখানা চালু করেছিল ফোর্ড। সেখানে প্রতি বছর হাজার ৭০০ অটোমোবাইল ৩৬০টি ট্রাক্টর নির্মাণ হতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.